Home খেলা ম্যারাডোনার জীবনে যত বিতর্ক

ম্যারাডোনার জীবনে যত বিতর্ক

পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করে চলে গেলেন আর্জেন্টাইন কিংবদন্তি দিয়েগো ম্যারাডোনা। বুধবার (২৫ নভেম্বর) হার্ট অ্যাটাকে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন এই ফুটবল ঈশ্বর।ফুটবল ক্যারিয়ারে বরাবরই দাপট দেখানো ম্যারাডোনা অবশ্য বিতর্ককে স্থায়ী সঙ্গী হিসেবে নিয়েছিলেন। বিশেষ করে মাদক এক সময়ে তার সবচেয়ে কাছের বস্তু হিসেবে পরিণত হয়েছিল।

ম্যারাডোনা ১৯৮০‘র দশকের মাঝামাঝি থেকে ২০০৪ সাল পর্যন্ত কোকেনের প্রতি আসক্ত ছিলেন। তিনি ১৯৮৩ সালে বার্সেলোনায় খেলার সময় থেকেই মাদক নিতে শুরু করেন। পরে নাপোলিতে খেলার সময়ও তিনি নিয়মিত মাদক ব্যবহার করতে। যা তার ফুটবল ক্যারিয়ারে আঘাত হানতে  শুরু করে। দিনের পর দিন তার শারীরিক অবস্থা খারাপ হতে থাকে।

২০০০ সালের ৪ জানুয়ারি উরুগুয়ের পুন্তা দেল এস্তে ছুটি কাটানোর সময় তাকে দ্রুত একটি স্থানীয় ক্লিনিকের জরুরি কক্ষে নেয়া হয়। একটি সংবাদ সম্মেলনে চিকিৎসকরা বিবৃতি দিয়ে জানান, যে তার হৃৎপিণ্ডের পেশিতে ক্ষত ধরা পড়েছে। পরবর্তীতে জানা যায় যে তার রক্তে কোকেন পাওয়া গেছে এবং তার পরিস্থিতি সম্পর্কে পুলিশের কাছে ব্যাখ্যা দিতে হয়েছে। এই ঘটনার পর তিনি মাদক পুনর্বাসন পরিকল্পনা অনুসরণের জন্য আর্জেন্টিনা ছেড়ে কিউবাতে চলে যান।

২০০৪ সালের ১৮ এপ্রিল, চিকিৎসকরা প্রতিবেদন প্রকাশ করেন যে অতিরিক্ত কোকেন সেবনের কারণে ম্যারাডোনা মায়োকার্ডিয়াল ইনফ্রাকশনের দ্বারা আক্রান্ত হয়েছেন। বুয়েনস আইরেসের একটি হাসপাতালে তাকে নিবিড় পর্যবেক্ষণে রাখা হয়। সেসময় তার অসংখ্য ভক্ত ক্লিনিকের চারপাশে ভিড় করে। ২৩ এপ্রিল তার শ্বাসযন্ত্র খুলে দেওয়া হয়, তবুও ২৯ এপ্রিল মুক্তি পাওয়ার আগ পর্যন্ত তাকে নিবিড় পর্যবেক্ষণে রাখা হয়। তিনি কিউবায় ফিরে যাওয়ার চেষ্টা করেন, তবে তার পরিবার এর বিরোধিতা করে, তার আইনি অবিভাবকত্ব পরীক্ষা করার জন্য একটি বিচার বিভাগীয় পিটিশন দায়ের করা হয়।

একটা সময় ম্যারাডোনার ওজন বৃদ্ধি পাওয়ার প্রবণতা তৈরি হয়। তার খেলোয়াড়ি ক্যারিয়ারের শেষ থেকে গ্যাস্ট্রিক বাইপাস সার্জারি করার আগে পর্যন্ত তিনি বৃদ্ধিমূলক স্থূলতায় ভুগছিলেন। ২০০৫ সালের ৬ মার্চ কলম্বিয়ায় তার অস্ত্রোপচার করা হয়। তার সার্জন বলেন যে ম্যারাডোনাকে এক ধরনের তরল ডায়েট অনুসরণ করে চলতে হবে, তার স্বাভাবিক ওজন ফিরে পাওয়ার জন্য। তবে যখন ম্যারাডোনা জনসমক্ষে আসতে শুরু করেন, তখন তাকে আগের চেয়ে পাতলা গড়নে দেখা যায়।

২০০৭ সালের ২৯ মার্চ ম্যারাডোনাকে পুনরায় বুয়েনস আইরেসে একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তাকে হেপাটাইটিস এবং অ্যালকোহলের অতিরিক্ত ব্যবহারের কারণে চিকিৎসা করা হয়। তাকে ১১ এপ্রিল হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র দেওয়া হয়, কিন্তু এর দুই দিন পরই আবার ভর্তি হন। এর পরবর্তী কিছু দিনে তার স্বাস্থ্য সম্পর্কে কিছু গুজব ছড়িয়ে পড়ে, এমনকি একই মাসে তিনবার তার মৃত্যুর গুজব ছড়ায়।

২০০৭ সালের ৮ মে আর্জেন্টিনার টেলিভিশনের একটি অনুষ্ঠানে ম্যারাডোনা উপস্থিত হয়ে বলেন যে তিনি বিগত আড়াই বছর যাবৎ মাদক ব্যবহার ছেড়ে দিয়েছেন। ১৯৯১ সালে ইতালিতে ড্রাগ টেস্টে কোকেনের জন্য ধরা পড়ায় ১৫ মাসের জন্য ফুটবল থেকে নিষিদ্ধ হন তিনি। আর ১৯৯৪ বিশ্বকাপে ইফিড্রিন টেস্টে পজিটিভ ফলাফলের জন্য তাকে প্রতিযোগিতা থেকে বাদ দেওয়া হয়।

এদিকে ২০০৯ সালের মার্চে ইতালিয়ান কর্মকর্তাগণ ঘোষণা করেন যে ম্যারাডোনার ইতালীয় সরকারের কাছে করের ৩৭ মিলিয়ন ইউরো ঋণ রয়েছে। এর মধ্যে ২৩.৫ মিলিয়ন ইউরো তার মূল ঋণের ওপর জমা সুদ। প্রতিবেদন প্রকাশিত হয় যে তিনি শুধুমাত্র ৪২,০০০ ইউরো শোধ করেছেন, দুইটি বিলাসবহুল ঘড়ি এবং একটি মাকড়ি সেটের জন্য।ম্যারাডোনা বান্ধবী অলিভার মামলায় ২৩ মে ২০১৯ সালে গ্রেফতার হন। ম্যারাডোনা-অলিভার ছয় বছরের সম্পর্ক বিচ্ছেদের পর অর্থনৈতিক ক্ষতিপূরণ হিসেবে ৭৬ কোটি টাকার মামলা করেন অলিভা। সে মামলায় মেক্সিকো থেকে ফেরার পথে গ্রেফতার হন তিনি।

বরাবরই যুক্তরাষ্ট্রের বিরোধীতা করা ম্যারাডোনা ২০০৫ সালে আর্জেন্টিনার মার দেল প্লাটায় সামিট অফ দ্য আমেরিকাস-এ আর্জেন্টিনায় তৎকালীন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জর্জ ডব্লিউ বুশের উপস্থিতির বিরোধিতা করেন। তিনি একটি টি-শার্ট পরেছিলেন, যাতে লেখা ছিল “STOP BUSH” এবং তিনি বুশকে “আবর্জনা” হিসেবেও উল্লেখ করেন।

২০০৭ সালের আগস্টে, ভেনেজুয়েলার প্রেসিডেন্ড হুগো শ্যাভেজের একটি সাপ্তাহিক টেলিভিশন অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়ে তিনি বলেন, ‘আমি সবকিছুকেই ঘৃণা করি যা যুক্তরাষ্ট্র থেকে আসে। আমি ঘৃণা করি আমার সর্বশক্তি দিয়ে। ’এছাড়া ২০০৭ সালের ডিসেম্বরে ম্যারাডোনা ইরানের জনগনকে সমর্থন জানানোর জন্য একটি স্বাক্ষরকৃত শার্ট উপস্থাপন করেন। এটি ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জাদুঘরে প্রদর্শিত হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -

Most Popular

শীতে যেসব ভুলে মুখ কালচে দেখায়

শীতে প্রকৃতি যেমন থাকে উস্কখুস্ক, তেমনি ত্বকেরও একই অবস্থা। শীতে ত্বকের চাই বাড়তি যত্ন। অনেকসময় শীত আসলে আমাদের মুখের রঙ কালচে দেখায়। এসব থেকে...

করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ৩৬ জনের মৃত্যু, নতুন আক্রান্ত ২১৯৮ জন

নভেল করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে আরো ৩৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ছয় হাজার ৮৭৪ জনে দাঁড়িয়েছে। এ...

একবার অর্ডার করা খাবার ৪২ বার পাঠাল ফুডপান্ডা!

অনলাইন অ্যাপের নতুন এক সমস্যা দেখল ফিলিপাইনবাসী। একবার খাবার অর্ডার করে ৪২ বার খাবারের প্যাকেট পেয়েছেন এক ব্যক্তি। ঘটনা ফিলিপাইনের সেবু শহরে।  মূলত প্রযুক্তিগত ত্রুটির কারণেই এমনটা...

ই-কমার্স নীতিমালা: সাত দিনে পণ্য ডেলিভারি না দিলে জরিমানা

ঢাকা: অর্ডার সম্পন্ন হওয়ার পরে এলাকা ভেদে সাত থেকে ১০ দিনের মধ্যে পণ্য ডেলিভারি না দিলে জরিমানা গুনতে হবে ই- কমার্স কোম্পানিকে এটি করতে ব্যর্থ হলে...

Recent Comments